বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:০২ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

লক্ষ্মীপুরে ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত নথী দিতে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র

এম জেড মাহমুদ / ৯০ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: সোমবার, ৮ নভেম্বর, ২০২১

লক্ষ্মীপুরে ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত নথী দিতে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র

লক্ষ্মীপুরে খাস জমি বন্দোবস্ত নথী পাইয়ে দিতে নিরীহ ভূমিহীনদের কাছ থেকে বিশ থেকে ত্রিশ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এ চক্রের অন্যান্য সদস্যদের সাথে জড়িত রয়েছেন, চর রমনী মোহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন দানু। টাকা দিয়েও বন্দোবস্ত নথী না পেয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

সোমবার (৮অক্টোবর) অনুসন্ধানকালে জানাযায়, লক্ষ্মীপুর জেলা সদরের চররমনী মোহন ইউনিয়নটি মেঘনা নদীর তীরবর্তী একটি ইউনিয়ন। নদীতে মাছ শিকার আর কৃষি কাজ করা এ অঞ্চলের মানুষের পেশা। অধিকাংশ মানুষ নিরক্ষর। দারিদ্র্য সীমার নীচে বাস করে এখানকার বহু মানুষ। নিরক্ষরতা আর দারিদ্র্য এ দুটোকে পুঁজি করে ইউনিয়নের বিভিন্ন দারিদ্র পীড়িত এলাকায় গিয়ে নিরিহ ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত নথী করে দিবে বলে ভূলবুঝিয়ে একর প্রতি খাস জমি ২০ থেকে ৩০হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি নব্য ভূমিদস্যু চক্র।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী আবদুল কাদির সর্দারের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানযায়, চররমনী মোহন গ্রামের জুলমত আখনের ছেলে ঈমাম হোসেন আখন সহ নুর মোহাম্মদ হাওলাদারের ছেলে মোহন হাওলাদার, রোশন আলী আখনের ছেলে হামিদ আখন, চররমনী মোহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন দানু ও লক্ষ্মীপুর বাঞ্চানগর গ্রামের আহম্মদ উল্যার ছেলে আজমল হোসেন হেলাল “লক্ষ্মীপুর সয়াবিন উৎপাদনকারী সমবায় সমিতি লিমিটেড”-এর নাম দিয়ে তিন মাসের মধ্যে এক একর সরকারী খাস জমি বন্দোবস্ত পাইয়ে দিবে বলে তার কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা দাবী করে। পরে তিনি বিশ হাজার টাকা নগদ প্রদান করেন তাদের। বেঁধে দেওয়া সময় অতিবাহিত হলেও বন্দোবস্তনথী না পেয়ে এবং টাকা ফেরত না দেওয়ায় ভূক্তভোগীদের পক্ষে ভূমিদস্যুদের প্রতারণার বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের নিকট অভিযোগ করেন তিনি। অভিযোগ সূত্রে আরো জানাযায়, একই ভাবে প্রায় ৮০ জন নিরিহ ভুমিহীনদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এসব নব্য ভূমিদস্যুরা।

স্থানীয়দের মধ্যে শাহজালাল মোল্লা জানান, চর রমনী মোহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন দানু তিনি একজন সরকারী কর্মচারী। সরকারী চাকুরীরত অবস্থায় কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জড়িত না থাকার বিধান থাকলেও তিনি কি ভাবে “লক্ষ্মীপুর সয়াবিন উৎপাদনকারী সমবায় সমিতি লিমিটেড” নামীয় একটি সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। জনস্বার্থে তিনি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে ঈমাম হোসেন আখনের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি জানান, “লক্ষ্মীপুর সয়াবিন উৎপাদনকারী সমবায় সমিতি লিমিটেড” নামীয় একটি সমিতি গঠন করেছেন তারা। এ সংগঠনের মাধ্যমে ভূমিহীনদের জমি বন্দোবস্ত করে দিতে তারা কাজ করছেন। তিনি এ কমিটির কোষাধ্যক্ষ, রিসিটের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছেন বলে দাবী করেন তিনি। এ ছাড়া কমিটির কোন তালিকা উপস্থাপন না করলেও তিনি জানান, এ কমিটির সভাপতি আজমল হোসেন হেলাল ও সাধারণ সম্পাদক চর রমনী মোহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন দানু।


এই বিভাগের আরো খবর