বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০২:৪৪ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

লক্ষ্মীপুর দিঘলীতে চলাচলের পথে কাঁটা দিয়ে প্রতিবন্ধকতার অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি / ৬৭ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১

লক্ষ্মীপুর দিঘলীতে চলাচলের পথে কাঁটা দিয়ে প্রতিবন্ধকতার অভিযোগ

লক্ষ্মীপুর চন্দ্রগঞ্জ থানার দিঘলী ইউপি’র পূর্ব দিঘলী মোল্লাবাড়ীতে চলাচলের পথে কাঁটার আওলী বেড়া দিয়ে তিন পরিবারের যাতায়তের পথ বন্ধ করার অভিযোগ রয়েছে প্রতিপক্ষ দেলোয়ারগংদের বিরুদ্ধে। পথ ও জমির পূর্ব বিরোধের জের প্রতিপক্ষ দ্বারা আবদুস সহিদ ও জহির গংরা হামলা স্বীকার হয়। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হয়। যাহার সি.আর মামলা নং-৩৭৭/২১ইং।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সরেজমিন অনুসন্ধান কালে মামলার বিবরণ ও ভুক্তভোগিদের কাছ থেকে জানাযায়, দিঘলী মোল্লাবাড়ির পাশে স্থানীয় মসজিদের সামনে খেলাধূলাতে শিশু বাচ্ছাদের হাতাহাতিকে কেন্দ্র করে জহিরুল ইসলামের শিশুপুত্র সামিউল ইসলাম জিহাদ (১৩) কে বেধম মারধর করে গলায় টিপে হত্যার চেষ্টা করে একই বাড়ীর প্রতিপক্ষ দেলোয়ার। খবর পেয়ে শিশু জিহাদকে উদ্ধার করতে তার জেঠা আবদুস সহিদ, বাবা জহিরুল ইসলাম সহ অন্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। এ ঘটনায় কয়েকজন গুরুত্বর আহত হয়। এর আগে আবদুস সহিদ ও জহির গংসহ তিন পরিবারের যাতায়তের পথে কাঁটা দিয়ে পথ বন্ধ করার চেষ্টা করে এবং তাদের কতেক জমিতে বিল্ডিং নির্মাণ করেছে একই বাড়ীর রফিক উল্যা মুন্সির ছেলে দেলোয়ার গংরা। এ ঘটনায় জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৬জনকে বিবাদী করে মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হলেন, রফিক উল্যা মুন্সির ছেলে দেলোয়ার, আনোয়ার, আমির হোসেন, দেলোয়ারের স্ত্রী শাহনাজ আক্তার, আনোয়ারের স্ত্রী লাকি বেগম ও আমির হোসেনের স্ত্রী বিউটি আক্তার।

আবদুস সহিদের স্ত্রী মমতাজ বেগম জানান, ৩৯বছর পূর্বে আমার বিবাহ হয়েছে। এরপর থেকে এ বাড়ীতে যে রাস্তা দিয়ে চলাচল করতাম সে রাস্তায় আসামীরা হঠাৎ কাঁটা দিয়ে প্রতিবন্ধকতা করা চেষ্টা করছে এবং তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাকে, আমার স্বামী, দেবর ও জা’দের পিটিয়ে আহত করেছে তারা

জালাল আহম্মদের ছেলে জহিরুল ইসলাম জানান, প্রতিপক্ষ দেলোয়ার ও আনোয়ার গংরা আমাদের ওয়ারিশী এক শতাংশ জমিতে জোরপূর্বক বিল্ডিং নির্মাণ করেছে। বাধা দিলে বাধা মানেনাই এবং আমাদের কয়েক যুগের চলাচলের পথে কাঁটা দিয়ে পথ বন্ধ করার চেষ্টা করেছে তারা।

জহিরুল ইসলামের স্ত্রী ফাতেমা জানান,জমিজমা নিয়ে পূর্ব বিরোধের জের ধরে আমার শিশু সন্তান জিহাদকে গলাটিপে হত্যার চেষ্টা করেছে প্রতিপক্ষ দেলোয়ারগংরা। তাদের ভয়ে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি।

রফিক উল্যা মুন্সির ছেলে আনোয়ার জানান, উভয়পক্ষের মধ্যে মারপিটের ঘটনা সত্য। তাদের কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জানান। তিনি বলেন, পথে কাঁটা দিয়েছি সেটা আমাদের জমি। বিল্ডিংও তাদের জমিনে নির্মাণ করেছে বলে তিনি জানান।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি ফজলুল হক জানান, ঘটনার বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 


এই বিভাগের আরো খবর