শিরোনাম:
স্বামী যদি সহবাসে অক্ষম হয়, তাহলে স্ত্রীর কী করা উচিৎ? বি’ব্র’তক’র সা’দাস্রা’ব প্র’তিরো’ধে ক’রণী’য়। প্র’ত্যে’ক মে’য়ে’র জেনে রা’খা প্র’য়োজ’ন লক্ষ্মীপুরে আ. লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি পদ নিয়ে টানাটানি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে বিয়ে, যা বললেন পরীমনি ভায়াগ্রা নয়, পেঁয়াজ দিয়েই বাড়ান ৩গুণ সেক্স! এবং সহবাসে সঙ্গীকে দিন পরিপূর্ণ তৃপ্তি! শা’রী’রিক মি’ল’নে চ’র’ম আন’ন্দ পে’তে ট্রা’ই ক’রু’ন এই ভ’ঙ্গি’মা সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা ও’ষুধ-ক’নডম ছাড়াই কিভাবে জ’ন্ম নি’য়ন্ত্রণ করা সম্ভব ! বিবা’হিত দম্পতিরা জেনে রাখু’ন গাছের পাতা বিক্রি করে বছরে আয় ১২ লাখ টাকা জেগে উঠেছে সমুদ্রগর্ভের ‘ঘুমন্ত দানব’
সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪৯ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

রাতে ভাত না রুটি, কী খেলে কমবে ওজন

রাহিমা আক্তার মুন্নী / ১২২ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: বুধবার, ২৫ আগস্ট, ২০২১

রাতে ভাত না রুটি, কী খেলে কমবে ওজন

সময়ের সাথে সাথে বয়স বাড়তে থাকে। শরীর তখন আর দৈর্ঘ্যে বাড়ে না। বাড়তে থাকে প্রস্থে। অল্প পরিশ্রমেই শরীর হাঁসফাঁস করতে শুরু করে, ক্লান্তি এসে ভর করে। তখনই শুরু হয় শরীরচর্চা, খাবারদাবারে নিয়ন্ত্রণ। তখন একটি প্রশ্ন বড় হয়ে দেখা দেয়, আর সেটা হলো- রাতে কী খেলে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকবে বা কমবে, সেটা কী ভাত, না রুটি?

অনেকেই মনে করেন ওজন বৃদ্ধির পেছনে একটি কালপ্রিটই দায়ী, আর তা হলো ভাত। বিশেষ করে রাতে ভাত খেলেই নাকি চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়তে শুরু করে ভুঁড়ি। সেই তুলনায় নাকি রুটি খেলে ওজন সেভাবে বাড়ে না। এখানেই শেষ নয়, রাতে রুটি খেলে ওজন ঝরতেও শুরু করে! সত্যিই কি এমনটা হয়, রাতে ভাত খেলে কি সত্যিই ওজন বাড়ে? আর রুটি খেলে ওজন কমে? চলুন জেনে নেওয়া যাক-

৩০ গ্রাম চাল থেকে এনার্জি পাওয়া যায় ১০২.১ ক্যালরি। এবং ৩০ গ্রাম আটার রুটিতে ক্যালরি মেলে ৯৬.৪ ক্যালরি। এবার দেখা যাক, প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন এবং খনিজের পরিমাণ ভাত ও রুটিতে কতটুকু আছে।

প্রতি ১০০ গ্রাম চালে রয়েছে ৮ গ্রাম প্রোটিন, ০.৬ গ্রাম ফ্যাট, ৭৭ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ২০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ১৩৬ মিলিগ্রাম ফসফরাস, ০.৫ মিলিগ্রাম আয়রন, ফাইবার ২.২ গ্রাম। এবং প্রতি ১০০ আটায় আছে ১৩ গ্রাম প্রোটিন, ১.৩ গ্রাম ফ্যাট, ৫৬ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৩৪ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ৩৫৭ মিলিগ্রাম ফসফরাস, ৩.৬০ মিলিগ্রাম আয়রন ও ফাইবার ১০.৭ গ্রাম।

 

রূপালি ইলিশ চেনার সহজ উপায়

উপরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী সমপরিমাণ ভাত ও রুটির মধ্যে এনার্জিগত বা ক্যালরিগত তেমন কোনো পার্থক্য নেই। তফাৎ নেই কার্বোহাইড্রেটের মাত্রাতেও। তাই রাতে ভাতই খান বা রুটি, ওজন একই রকম বাড়ার সম্ভাবনা আছে।

তবে রুটির গ্লাইসেমিক ইনডেক্স ভাতের তুলনায় কম। গমের রুটির গ্লাইসেমিক ইনডেক্স ৬২ এবং ভাতের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স ৭৩। অর্থাৎ ভাত খুব দ্রুত বিপাকক্রিয়ায় ভাঙে ও গ্লুকোজ শরীরে মুক্ত করে। রুটিতে ফাইবার থাকায় সুগার মুক্ত হতে বেশি সময় লাগে। পাশাপাশি ফাইবার থাকায় রুটি খেলে দীর্ঘসময় পেট ভর্তি থাকায় ক্ষুধা কম অনুভূত হয়। দ্রুত খিদে পায় না এবং অতিরিক্ত খাদ্য খাওয়ারও প্রয়োজন পড়ে না।

আর অতিরিক্ত গ্লুকোজ শরীরে ফ্যাট হিসেবে সঞ্চিত হয়। যেখানে ফাইবার বেরিয়ে যায়। এ কারণেই অনেকে ওজন কমানোর উপায় হিসেবে খাদ্যতালিকায় রুটিকে এগিয়ে রাখেন। তবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত রুটির গ্লুকোজও কিন্তু শরীরে ফ্যাট হিসেবে জমতে থাকে। তাই ভাত অথবা রুটি দুটিই পরিমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত। রুটি খেলে কয়েকদিনের মধ্যে মোটা থেকে শুকিয়ে যাবেন, এমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই।


এই বিভাগের আরো খবর