শিরোনাম:
রোহিঙ্গা নিপীড়নকারীদের বিচারের আওতায় আনার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর রায়পুরের ৬নং কেরোয়া ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহাদাত হোসেন লিটন কলাপাড়ায় ১ জেলেকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ নৌ- পুলিশের বিরুদ্ধে” প্রাথমিকে নিয়োগ ও বেতন নিয়ে সুখবর দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা নিয়ে রোডম্যাপ তৈরির প্রস্তাব কুয়েতের লক্ষ্মীপুর যুবলীগের দু-গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত-১২ লক্ষ্মীপুর দলিল জালিয়াতির মামলায় ৩ আসামী কারাগারে লক্ষ্মীপুরে চার সন্তানকে ঘরে রেখে আগুন : মায়ের বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা নতুন ফ্ল্যাটে জীবনকে ভালোবাসছেন পরীমনি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি: গণিত মডেল টেস্ট ১
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৩ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

লক্ষ্মীপুরে মাদরাসায় খাবার খেয়েই বমি, পরে ছাত্রের মৃত্যু

রায়পুর প্রতিনিধি / ২১২ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: বৃহস্পতিবার, ১৮ মার্চ, ২০২১

লক্ষ্মীপুরে মাদরাসায় খাবার খেয়েই বমি, পরে ছাত্রের মৃত্যু

লক্ষ্মীপুর থেকে জহির উদ্দিন মাহমুদঃ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মাদরাসায় খাবার খেয়ে বমি করে মাটিতে পড়ে যায় মো. মুন্না (১৩)। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় মাদরাসার সুপার মোজাম্মেল হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ।

তবে বুধবার (১৭ মার্চ) রাত ১১টা পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা বা লিখিত অভিযোগ করা হয়নি। পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে ছেলের শোকে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন মা মমতাজ বেগম। তিনি বলেন, ‘আমার মুন্নারে আনি দে…আমার ছেলেরে তারা মারি হালাইছেরে।’

মুন্না কেরোয়া এলাকার সৌদি প্রবাসী কামাল হোসেনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, রায়পুর পৌরসভার ল্যাংড়া বাজার পশ্চিম কেরোয়া এলাকার আফিয়া হারুন নূরানি হাফিজিয়া মাদরাসায় দুপুরের খাবার খায় মুন্না। পরে বমি করে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের পরিবার সূত্র জানায়, মুন্না স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত। করোনাকালীন বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় তাকে কোরআন শিক্ষার জন্য গত বছরের আগস্টে মাদরাসায় ভর্তি করা হয়। সেখানে সে দুপুরের খাবার খেতো।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক সিরাজুম মুনিরা জানান, শিশুটির শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। হাসপাতালে আনার আগেই সে মারা যায়। কি কারণে মারা গেছে তা নিশ্চিতভাবে জানাতে পারেননি এই চিকিৎসক।

মুন্নার মা মমতাজ বেগম দাবি করেন তার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। তবে কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে, তা বলতে পারেননি তিনি।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল বলেন, কী কারণে শিশুর মৃত্যু হয়েছে তা বলা যাচ্ছে না। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মাদরাসা সুপারকে আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।


এই বিভাগের আরো খবর