শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৩৮ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

তুলসীপাতার গুণেই মিলবে ডায়াবিটিস থেকে মুক্তি!

প্রতিবেদক: / ২৬৪ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০

  • তুলসীপাতার গুণেই মিলবে ডায়াবিটিস থেকে মুক্তি!

সর্দি-কাশির উপশমে তো বটেই স্ট্রেস কমানো থেকে শুরু করে ব্লাডসুগার নিয়ন্ত্রণ, খুব ভালো কাজ করে তুলসী পাতা। কাঁচা পাতা চিবিয়ে খান কিংবা চা বানিয়ে খান। উপকারে আসবেই

তুলসীর ভেষজ গুণ নিয়ে প্রাচীন কাল থেকেই বহু আলোচনা করে এসেছেন মুনি-ঋষিরা।এমনকী আর্য়ুবেদ শাস্ত্রেও রয়েছে সেই উল্লেখ।এখন বাজারে তুলসীর গুণ সমৃদ্ধ বিভিন্ন ওষুধ-টনিক পাওয়া যায়।কিন্তু কাঁচা পাতায় যে গুণ থাকে তা কখনই টনিকের মধ্যে থাকে না।

ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে তুলসী

আজ থেকে ২০ বছর আগেও সব বাড়ির উঠোনে একটা করে তুলসী মঞ্চ থাক। নিয়ম করে সেখানে ঠাকুমা-দিদিমারা সন্ধ্যায় ধূপ-প্রদীপ জ্বালাতেন। হাত পা ধুয়ে ছোটরাও যেত পিছু পিছু প্রণাম করতে। এছাড়াও সারা বছর সকালে উঠে তুলসী পাতা আর মধু খাওয়ার একটা রেওয়াজ ছিল। যাতে ঠান্ডা না লাগে সেই জন্য এই টোটকা ব্যবহার করতেন বাড়ির বয়স্করা। তবে এসব এখন অতীত। শহরের বাড়িতে তুলসি গাছ থাকলেও খুব একটা নিয়ম করে সেখানে ধূপ-প্রদীপ জ্বলে না। তুলসী পাতা চিবিয়ে খাওয়ার রেওয়াজও ফুরিয়ে এসেছে। আর ফ্ল্যাটবাড়িতে থাকলেও তার ব্যবহার শুধুমাত্র ইন্ডোর প্ল্যাট হিসেবেই।

কিন্তু তুলসীর ভেষজ গুণ নিয়ে প্রাচীন কাল থেকেই বহু আলোচনা করে এসেছেন মুনি-ঋষিরা। এমনকী আর্য়ুবেদ শাস্ত্রেও রয়েছে সেই উল্লেখ। এখন বাজারে তুলসীর গুণ সমৃদ্ধ বিভিন্ন ওষুধ-টনিক পাওয়া যায়। কিন্তু কাঁচা পাতায় যে গুণ থাকে তা কখনই টনিকের মধ্যে থাকে না। তবে এই করোনাকালে বিশেষজ্ঞরা জোর দিয়েছেন তুলসী পাতার উপর। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে আদা-গোলমরিচ-লেবু-দারচিনির জলে দুএকটা তুলসী পাতা ফেলে দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা। গলা ব্যাথা বা ঠান্ডা লাগার মতো উপসর্গ থাকলেও তা দূর হবে তুলসীর গুণে। এছাড়াও শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা, হার্টের সমস্যা থাকলেও তুলসী পাতা খাওয়ার কথা বলা হয়। সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে টাইপ ২ ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণেও খুব ভালো কাজ করে তুলসী পাতা। রক্তে শর্করার পরিমাণ ঠিক রাখতে তুলসী পাতার অনেক রকম ভূমিকা রয়েছে। দেখে নিন কীভাবে কাজ করে তুলসি পাতা –

রক্তে শর্করার পরিমাণ ঠিক রাখতে সাহায্য করে তুলসী পাতা। যার ফলে কমে ডায়াবিটিসের ঝুঁকিও। প্রতিদিন সকালে উঠে দু একটা কাঁচা পাতা চিবিয়ে খেতে পারেন। কিংবা পাঁচটা তুলসী পাতা আগের রাতে এক গ্লাস জলে ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন সকালে তা ছেঁকে খেয়ে নিন।

কাঁচা পাতাই চিবিয়ে খান

তুলসী পাতা দিয়ে চা বানিয়েও খেতে পারেন। তিন কাপ জল, হাফ চামচ আদা কুচি, ১৫ টা তুলসী পাতা, মধু এক চামচ আর দু চামচ পাতিলেবুর রস মিশিয়ে বানিয়ে নিন তুলসী চা। দিতে পারেন এলাচ গুঁড়োও। সসপ্যানে জল দিয়ে লেবু আর মধু বাদে সব উপকরণ একসঙ্গে দিয়ে ফুটিয়ে নিন। খাওয়ার আগে মধু আর লেবু মমিশিয়ে নিন। গরম গরম খাবেন।

বানিয়ে নিন তুলসী চা

এছাড়াও জল ফুটলে তার মধ্যে তুলসী পাতা দিন। এবার তা ছেঁকে একটু মধু মিশিয়েও খেতে পারেন।

খালি পেটে তুলসী পাতা ভেজানো জল খেলে লিভারেরও সমস্যা মিশবে।

লিকার চা বানানোর সময় ছাঁকবার আগেই দারচিনি, আদার রস আর তুলসি পাতা দিয়ে দিন। এবার চা ছেঁকে ফ্লাস্কে রাখুন। দিনে তিন থেকে চারবার খান। শরীরও থাকবে তাজা। রক্তচাপও থাকবে নিয়ন্ত্রণে। পেটের নানা সমস্যা, গলা খুশখুশ এসব থেকেও পাবেন মুক্তি।

যাঁরা স্ট্রেসের মতো সমস্যায় ভুগছেন তাঁরা একটি হাঁড়িতে গরম জল ফুটতে দিন। এর মধ্যে কয়েকটা তুলসী পাতা ফেলে দিন। এবার হাঁড়ি নামিয়ে মুখ ভালো করে ঢেকে ভেপার টানুন। দেখবেন মাথা ব্যাথাও কমবে। স্ট্রেস থেকেও মিলবে মুক্তি।

আরও পড়ুন
করোনাকালে ইমিউনিটি বাড়াতে সবাই খাচ্ছেন হলুদ-দুধ! উপকারিতা জানেন?

এছাড়াও যাঁদের ঘামের দুর্গন্ধের মতো সমস্যা হয় তাঁরা তুলসী পাতা আর তেজপাতা একসঙ্গে ফুটিয়ে ঠান্ডা করে বোতলে ভরে রাখুন। প্রতিদিন স্নানের আগে জলের সঙ্গে ওই তুলসীর জল মিশিয়ে স্নান করুন। দেখবেন ত্বকের নানা সমস্যা, দুর্গন্ধ এসব আর থাকবে না।

রোজ মাত্র দুটো করে আমন্ড খান, নিজেই দেখুন পরিবর্তন!
যাঁরা দাঁত ব্যাথায় ভুগছেন কিংবা মাড়ির কোনও সমস্যা তাঁরা তুলসী পাতা আর লবঙ্গ একসঙ্গে ফুটিয়ে নিন। এবার ওই জল দিয়েই বার কয়েক কুলকুচি করুন। চারদিন করলে ব্যাথার উপশম হবে। এছাড়াও প্রতিদিন করতে পারলে মুখের বা দাঁতের কোনও সমস্যা সচরাসর হবে না।


এই বিভাগের আরো খবর