বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

১৫ আগষ্ট প্রস্তুতি সভায় আ’লীগ সভাপতি-সম্পাদকের মধ্যে বাকবিতন্ড 

বিশেষ প্রতিনিধি / ৮৯ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১০ আগস্ট, ২০২১

১৫ আগষ্ট প্রস্তুতি সভায় আ’লীগ সভাপতি-সম্পাদকের মধ্যে বাকবিতন্ড
লক্ষীপুর কমলনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি নুরুল আমিন মাষ্টারের সাথে ১৫ই আগষ্ট প্রস্তুতি সভায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নুরুল আমিন রাজুসহ নেতাকর্মীদের মধ্যে বাকবিতন্ডের ঘটনা ঘটে।
৭ই আগষ্ট শনিবার সন্ধ্যায় কমলনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের নিজস্ব কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, ১৫ আগস্টের জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি সভা আয়োজন করা হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন মাস্টারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন রাজুর সঞ্চালনায় প্রস্তুতি সভা চলছিল। এতে শোক দিবসের অর্থ প্রাপ্তি ও খরচের বিষয়ে আলোচনা হয়।উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি নুরুল আমিন মাষ্টার রামগতি-কমলনগর সংসদ সদস্য মেজর অবঃ আব্দুল মান্নান এমপি’র কমলনগর উপজেলা প্রতিনিধির দায়িত্বে আছেন। শোক দিবসের প্রস্তুতি সভায় এমপি’র বিভিন্ন বরাদ্দ, সরকারি অনুদান, বর্ষায় নদী ভাঙ্গন রোধে আপতকালীন বরাদ্ধে জিও ব্যাগ ড্রাম্পিং এর কাজ যথা সময়ে না করা, দলীয় নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে বিএনপি-জামায়াত কে সুবিধা পাইয়ে দেওয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি নুরুল আমিন মাষ্টার কাছে সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এ কে এম নুরুল আমিন রাজু জানতে চাইলে এ নিয়ে দুই জনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। তাৎক্ষণিক দুই নেতার অনুসারীদের মধ্যেও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। দলের অন্যান্য নেতারা পরিস্থিতি শান্ত করেন। তবে শোক সভার প্রস্তুতি সভা ভণ্ডুল হয়ে যায়।
উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ দুই নেতার বাকবিতণ্ডায় ও শোক সভার প্রস্তুতি সভা ভণ্ডুল হওয়ার বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে সমালোচনা ঝড় উঠে।
সভায় উপস্থিত কয়েকজন নেতা জানান,সভাপতি-সম্পাদকের মধ্যে সমন্বয় নেই। স্থানীয় সংসদ সদস্যের বরাদ্দসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তাদের দু’জনের মধ্যে অসন্তোষ চলছে।
উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এ কে এম নুরুল আমিন মাষ্টার জানান, প্রস্তুতি সভায় ১৫ই আগষ্ট উদযাপন খরচসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিরোধ সৃষ্টি হয়েছে। তাছাড়া নদী ভাঙ্গন রোধে আপতকালীন বরাদ্ধে জিও ব্যাগ ড্রাম্পিং কাজে আমাকে দুষলেও এটা পানি উন্নয়ন বোর্ডের এখতিয়ার। তিনি বলেন, আমি কোন বিতর্কিত কর্মকান্ডের সাথে জড়িত নয়।
উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এ কে এম নুরুল আমিন রাজু বলেন, দলীয় কর্মসূচিতে সঠিক সময়ে সভাপতির অনুপস্থিতি, নদী ভাঙ্গন রোধে আপতকালীন ৭কোটি টাকা বরাদ্ধের কাজ যথা সময়ে না হওয়ায়, এমপির বরাদ্ধ সঠিক ব্যবহার না হওয়াসহ  বিভিন্ন কর্মকান্ডের বিষয় সভায় সভাপতির কাছে জানতে চাইলে তিনি বাকবিতন্ডের সৃষ্টি করেন।


এই বিভাগের আরো খবর