শিরোনাম:
গোবিন্দগঞ্জ পৌর নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর ইশতেহার ঘোষণা নওগাঁ পৌর নির্বাচনের শেষ মুহুর্তে প্রচারণায় ব্যাস্ত প্রার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে সরকারকে আইনি নোটিশ রামগঞ্জে ২নং ওয়ার্ডে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ লক্ষ্মীপুরে ‘কিশোর গ্যাং’সহ বিভিন্ন অপরাধ দমনে ওসির নেতৃত্বে বিট পুলিশিং মহড়া ফেব্রুয়ারির ১ম বা ২য় সপ্তাহে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার পরিকল্পনা করা হয়েছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের উদ্যোগে পরশ ও নিখিলের রোগ মুক্তির কামনায় দোয়া ও মিলাদ লক্ষ্মীপুর তেওয়ারীগঞ্জে তিন ইটভাটায় জরিমানা লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ওসি আবদুল জলিলের কম্বল বিতরণ লক্ষ্মীপুরে চাঁদা না পেয়ে বাসায় ঢুকে হামলা : ৩ আসামী জেলে
বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:৫১ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

মূর্তি ও ভাস্কর্য সম্পর্কে ইসলাম কি বলে

প্রতিবেদক: / ৬৩ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০

মূর্তি ও ভাস্কর্য সম্পর্কে ইসলাম কি বলে

মাওলানা মোহাম্মদ জাকারিয়া আব্দুল্লাহঃ

মূর্তি ও ভাস্কর্যের মধ্যে বিধানগত কোনো পার্থক্য নেই। যারা মূর্তি ও ভাস্কর্যকে আলাদা বলেন, তারা সঠিক বলেন না।

গত আলোচনায় আমরা কোরআনের আয়াত দ্বারা তা স্পষ্ট করেছি। এই আলোচনায় নবী করিম (সা.)-এর পবিত্র হাদিস থেকেও মূর্তি ও ভাস্কর্য আলাদা কোনো বস্তু নয়, তা প্রমাণ করা হলো। কেননা, হাদিস শরীফেও নবী করীম (সা.) মূর্তি ও ভাস্কর্য সম্পর্কে পরিষ্কার বিধান দান করেছেন। নিম্নে কয়েকটি হাদিস উল্লেখ করা হলো :

হযরত আমর ইবনে আবাসা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করীম (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা আমাকে প্রেরণ করেছেন আত্মীয়তার সম্পর্ক বজায় রাখার, মূর্তিসমূহ ভেঙে ফেলার
এবং এক আল্লাহর ইবাদত করার ও তাঁর সঙ্গে অন্য কোনো কিছুকে শরিক না করার বিধান দিয়ে। (সহীহ মুসলিম : ৮৩২)।

২. আবুল হাইয়াজ আসাদী বলেন, আলী ইবনে আবী তালেব রা. আমাকে বললেন, ‘আমি কি তোমাকে ওই কাজের দায়িত্ব দিয়ে প্রেরণ করব না, যে কাজের জন্য নবী (সা.) আমাকে প্রেরণ করেছিলেন? তা এই যে, তুমি সকল প্রাণীর মূর্তি বিলুপ্ত করবে এবং সকল সমাধিসৌধ ভূমিসাৎ করে দিবে।’ অন্য বর্ণনায় এসেছে,… এবং সকল চিত্র মুছে ফেলবে।’ (সহীহ মুসলিম : ৯৬৯)।

৩. আলী ইবনে আবী তালেব (রা.) বলেন, নবী করীম (সা.) একটি জানাজায় উপস্থিত ছিলেন। তখন তিনি বললেন, ‘তোমাদের মধ্যে কে আছে, যে মদীনায় যাবে এবং যেখানেই কোনো প্রাণীর মূর্তি পাবে তা ভেঙে ফেলবে, যেখানেই কোনো সমাধিসৌধ পাবে তা ভূমিসাৎ করে দিবে এবং যেখানেই কোনো চিত্র পাবে তা মুছে দিবে?’ আলী রা. এই দায়িত্ব পালনের জন্য প্রস্তুত হলেন। এরপর নবী (সা.) বলেছেন, ‘যে কেউ পুনরায় উপরোক্ত কোনো কিছু তৈরি করতে প্রবৃত্ত হবে সে মুহাম্মাদের (সা.) প্রতি নাজিলকৃত দ্বীনকে অস্বীকারকারী।’ (মুসনাদে আহমাদ : ৬৫৭)। এই হাদিসগুলো থেকে স্পষ্ট জানা যাচ্ছে যে, যে কোনো প্রাণী মূর্তিই ইসলামে পরিত্যাজ্য এবং তা বিলুপ্ত করাই হলো ইসলামের বিধান। আর এগুলো নির্মাণ করা ইসলামকে অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের বৈশিষ্ট্য।

৪. আবু হুরায়রা রা. নবী (সা.) থেকে বর্ণনা করেছেন, আল্লাহ তাআলা বলেন : ওই লোকের চেয়ে বড় জালেম আর কে যে আমার সৃষ্টির মতো সৃষ্টি করার ইচ্ছা করে। তাদের যদি সামর্থ্য থাকে তবে তারা সৃজন করুক একটি কণা এবং একটি শষ্য কিংবা একটি যব! (সহীহ বুখারী : ৫৯৫৩)। এই হাদিসটি বর্তমান সময়ের জন্য অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক, যখন ভাস্কর-চিত্রকর, এমনকি গল্পকার ও ঔপন্যাসিকদের পর্যন্ত ‘স্রষ্টা’ বলতে এবং তাদের কর্মকান্ডকে ‘সৃষ্টি’ বলতে সামান্যতমও দ্বিধাবোধ করা হয় না। কোনো কোনো আলোচকের আলোচনা থেকে এতটা ঔদ্ধত্যও প্রকাশিত হয় যে, যেন তারা সত্যি সত্যিই স্রষ্টার আসনে আসীন হয়ে গিয়েছেন!

সহীহ বুখারীর বিখ্যাত ভাষ্যকার হাফেজ ইবনে হাজার আসকানী (রহ.) লেখেন- এই ভাস্কর ও চিত্রকর সর্বাবস্থাতেই হারাম কাজের মধ্যে লিপ্ত। আর যে এমন কিছু নির্মাণ করে যার পূজা করা হয় তার পরিণাম অত্যন্ত ভয়াবহ। আর যে স্রষ্টার সামঞ্জস্য গ্রহণের মানসিকতা পোষণ করে সে কাফের।’ (ফতহুল বারী : ১০/৩৯৭)

৫. উম্মুল মুমিনীন আয়েশা (রা.) ও আব্দুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন : এই প্রতিকৃতি নির্মাতাদের (ভাস্কর, চিত্রকরদের) কিয়ামত দিবসে আযাবে নিক্ষেপ করা হবে এবং তাদের সম্বোধন করে বলা হবে, যা তোমরা ‘সৃষ্টি’ করেছিলে তাতে প্রাণসঞ্চার করো। (সহীহ বুখারী : ৭৫৫৭; ৭৫৫৮)। এই হাদিসগুলো থেকে প্রমাণিত হয় যে, ভাস্কর্য নির্মাণ অত্যন্ত কঠিন কবীরা গুনাহ। আর কোনো কোনো ক্ষেত্রে তা কুফরীর পর্যায়েও পৌঁছে যায়।

দৃষ্টান্তস্বরূপ এই হাদিসগুলো পেশ করা হলো। আলোচিত প্রসঙ্গে ইসলামী বিধান বোঝার জন্য এটুকুই যথেষ্ট। কুরআন মজীদে যে কোনো ধরনের মূর্তির সংশ্রব ও সংশ্লিষ্টতা পরিহারের যে আদেশ মুমিনদের করা হয়েছে সে সম্পর্কে একটা বিস্তারিত ধারণাও উপরোক্ত হাদিসগুলো থেকে জানা গেল। কুরআন ও সুন্নাহর এই সুস্পষ্ট বিধানের কারণে মূর্তি বা ভাস্কর্য নির্মাণ, সংগ্রহ, সংরক্ষণ ইত্যাদি সকল বিষয়ের অবৈধতার ওপর গোটা মুসলিম উম্মাহর ইজমা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। (উমদাতুল কারী ১০/৩০৯; ফাতহুল বারী ১০/৪০১; তাকমিলা ফাতহুল মুলহিম : ৪/১৫৯)।


এই বিভাগের আরো খবর