মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার...

পদোন্নতি নিয়ে প্রাথমিকে সুখবর

চলমান বাংলা ডেক্স / ৪৩ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০

পদোন্নতি নিয়ে প্রাথমিকে সুখবর

মামলা জটিলতার কারণে দীর্ঘদিন ধরে প্রাথমিকে থানা শিক্ষা কর্মকর্তা (টিইও) পদে পদোন্নতি বন্ধ রয়েছে। ফলে দেশের বিভিন্ন উপজেলার ৫০টি মাঠ কর্মকর্তার পদটি শূন্য হয়ে পড়েছে। পদ শূন্য থাকায় স্থবির হয়ে পড়েছে প্রশাসনিক কার্যক্রম। এ কারণে বর্তমানে সহকারী প্রাথমিক থানা শিক্ষা কর্মকর্তাদের (এটিইও) চলতি দায়িত্বে এসব পদে বসানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, দেশের অর্ধশত উপজেলার থানা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা না থাকায় অভিভাবকহীনভাবেই চলছে প্রাথমিকের শিক্ষা কার্যক্রম। এতে করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কাজ শেষ করা সম্ভব হচ্ছে না, মনিটরিং ব্যবস্থাও বন্ধ হয়ে গেছে। এতে করে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বিশৃঙ্খলা তৈরি হচ্ছে।

এদিকে এই পদটি প্রথম শ্রেণির অষ্টম গ্রেডের হওয়ায় সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) নিয়োগ ক্ষমতা আওতাভুক্ত হওয়ায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এ পদে নিয়োগ দিতে পারছে না। মামলাজনিত কারণে পদ শূন্য থাকলে পিএসসিও নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হচ্ছে না। এসব কারণে চলতি দায়িত্বে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে এটিইও থেকে টিইও পদে বসানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: শিক্ষকদের জন্য সুখবর দিল হাইকোর্ট

ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছে। ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে জ্যেষ্ঠতার তথ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যেই দেশের শূন্য থাকা ৫০টি জেলায় জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে পদোন্নতি দেয়া হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আক্তারুনসিসা বলেন, জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে এটিইও থেকে টিইও পদে পদোন্নতি দেয়ার কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। মাঠ কর্মকর্তাদের পাঠানো তথ্যের ওপর জ্যেষ্ঠার ভিত্তিতে পদোন্নতি দেয়া হবে। দ্রুতই এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হবে।

তিনি আরও বলেন, আপাতত প্রধান শিক্ষকের মতো এটিওদেরকে টিও পদে চলতি দায়িত্বের বসানো হবে। তাদেরকে অতিরিক্ত সম্মানী দেয়া হবে। এটা স্থায়ী পদোন্নতি বলে গণ্য হবে না।

জানা গেছে, নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী এটিও থেকে টিওর ৮০ শতাংশ নিয়োগের ভিত্তিতে এবং বাকি ২০ শতাংশ পদোন্নতির ভিত্তিতে এটিইও থেকে টিইও নেয়া হয়। এটি নিয়ে মামলা করায় তা উল্টে গিয়ে ৮০ শতাংশ পদোন্নতি ও ২০ শতাংশ সরাসরি নিয়োগ করতে আদালত থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়। বিষয়টি এখনো চূড়ান্তভাবে নিষ্পত্তি না হওয়ায় এ পদে পদোন্নতি বন্ধ রয়েছে।


এই বিভাগের আরো খবর